Home / মিডিয়া নিউজ / মেসেঞ্জারে দিচ্ছে এগুলো কি ইনভাইটেশন, প্রশ্ন মুনমুনের

মেসেঞ্জারে দিচ্ছে এগুলো কি ইনভাইটেশন, প্রশ্ন মুনমুনের

একের পর এক বিতর্কে জড়াচ্ছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নতুন কমিটি। চেয়ার বিতর্ক

শেষ না হলেও একের পর এক কর্মকাণ্ডে সমালোচিত হচ্ছেন কাঞ্চন-নিপুণরা। গত পহেলা বৈশাখের

উপহার এবং ইফতার অনুষ্ঠান নিয়ে সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বেশ কয়েকজন সমিতির সদস্য।

রোববার (২৪ এপ্রিল) রাতে হঠাৎ করে নিপুণ আক্তার সমর্থিত সদস্য জয়া চৌধুরী ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে লিখেন, গত পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি থেকে শিল্পীদের বাসায় বাসায় বৈশাখী উপহার পাঠানো হয়। আমিও শিল্পী সমিতির একজন সদস্য। কিন্তু আমাকে সমিতি থেকে কোনো উপহার পাঠানো হয়নি। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।

তবে জয়া মেসেঞ্জারে ইফতার অনুষ্ঠানের দাওয়াত পেয়েছিলেন। কিন্তু সেটি অমর্যাদাকর ভেবে বর্জন করেছেন জানিয়ে তিনি লিখেন, গত ২২ এপ্রিলের ইফতার অনুষ্ঠানে শেষ বেলায় দাওয়াত দিলেও সেটি একজন শিল্পী হিসেবে আত্মসম্মান লেগেছে, তাই ইফতার বর্জন করেছি। গত নির্বাচনে জায়েদ খান ভাইকে ভোট দিলেও এবার নিপুণ আক্তার আপাকে ভোট দেই। কিন্তু তার পুরস্কার সদ্য দুটি ঘটনা…।

জয়ার ফেসবুক পোস্টে শিল্পী সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক শাহনূর একটি মেসেঞ্জার স্ক্রিনশট পোস্ট করে লিখেন, জয়া তোমাকে আমি ২০ তারিখে কার্ড দিয়েছি, আমাদের ইফতার ছিল ২২ তারিখ। তুমি থ্যাংকস দিয়েছো আবার কেন বলছো কার্ড পাওনি? আমি স্ক্রিনশট দিয়ে দিয়েছি এখানে।

তবে মেসেঞ্জারে একটি কার্ড পাঠিয়ে দাওয়াত দেওয়াকে লজ্জাকর মনে করছেন ইন্ডাস্ট্রির অনেকে। তাদের ভাষায়, সদস্য হিসেবে জয়া একটি ফোন কল পেলেও পেতে পারতেন।

প্রশ্ন রেখে জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা মুনমুন বলেন, এর আগে শিল্পী সমিতির যত অনুষ্ঠান হয়েছে তার সব দাওয়াত কার্ড যথা সময়ে সম্মানের সাথে বাসায় আসতো। তবে এবারের নতুন কমিটি মেসেঞ্জারে একটি কার্ড পাঠিয়ে দিয়ে দায় সারতে চেয়েছিলেন। এগুলো শিল্পী হিসেবে আত্মসম্মানে আঘাত লাগে। মেসেঞ্জারে দিচ্ছে এগুলো কি ইনভাইটেশন?

প্রসঙ্গত, গেল ২৮ জানুয়ারি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ২০২২-২০২৪ মেয়াদে দ্বিবার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সাধারণ সম্পাদক পদে নিপুণ আক্তারকে পরাজিত করে জয়লাভ করেন জায়েদ খান। পরবর্তী সময়ে জায়েদ খানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ এনে তার প্রার্থিতা বাতিল করে নিপুণ আক্তারকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করেন আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান। এর বিরুদ্ধে আদালতে আপিল করেন জায়েদ। জায়েদের প্রার্থিতা ফেরত পেলে আবারও আপিল করেন নিপুণ। কিন্তু পরবর্তী সময়ে আবার আপিল করলে জায়েদ ফিরে পান পদ। কিন্তু উচ্চ আদালতে আবারও আপিল করেন নিপুণ। সেই আপিলের শুনানি এখনো হয়নি, যা নিয়ে দুই প্যানেলের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া চলছে।

Check Also

বুবলীকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না?

শাকিব খানের সঙ্গে জুটি বেঁধে অভিনয় করে প্রশংসিত হয়েছেন চিত্রনায়িকা শবনম বুবলী। এই জুটির বক্স …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *