Home / মিডিয়া নিউজ / ‘আর ১০টা মেয়ের মতো আমি স্বামী-সংসারসহ জীবনটা কাটাতে পারছি না’

‘আর ১০টা মেয়ের মতো আমি স্বামী-সংসারসহ জীবনটা কাটাতে পারছি না’

মাস কয়েক আগেই কানাডা পাড়ি জমিয়েছেন আলোচিত মডেল-অভিনেত্রী শ্রাবস্তী দত্ত তিন্নি। সেখানে

মেয়ে আরিশাকে নিয়ে ভালো কাটছে তার সময়। তবে সেখানে তিনি ঘুরতে যাননি, গিয়েছেন স্থায়ীভাবে

থাকতে। জানা গেছে, মেয়ে আরিশাকে সেখানেই বড় করতে চান তিনি। আর তাই আরিশাকে

সেখানকার স্কুলে ভর্তি করিয়েছেন। মা-মেয়ে দু’জনই বেশ ভালো সময় পার করছেন।

তাদের সেসব সুন্দর মুহূর্তের ছবি নিজের ফেসবুক ওয়ালেও পোস্ট করতে ভুলছেন না তিন্নি। তবে তিন্নি যদি সেখানে স্থায়ী হন তাহলে কি মিডিয়াকে বিদায় জানাচ্ছেন? তিনি কি আর ফিরবেন না? তার সাবলীল অভিনয়-পারফরমেন্স কি আর দেখবেন না দর্শক?

তিন্নি সরাসরি ’হ্যাঁ’ কিংবা ’না’ বললেও জানালেন, আসলে আমি এসব নিয়ে এখন ভাবছি না। আমি আমার মেয়ে আরিশাকে নিয়েই কেবল ভাবছি। কারণ আমার জীবন এখন আরিশানির্ভর। আমি আরিশাকে নিয়ে বাকিটা জীবন ভালো থাকতে চাই। আসলে সংসারতো করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু সেট হলো না। এটা অবশ্য ভাগ্যের বিষয়। আমি এর জন্য অনেক হতাশাগ্রস্ত তাও না। কারণ, প্রত্যেকটি মানুষের জীবনের গল্প আলাদা। আমারটাও আলাদা হবে সেটাই স্বাভাবিক। হতে পারে আর ১০টা মেয়ের মতো আমি স্বামী-সংসারসহ জীবনটা কাটাতে পারছি না। কিন্তু তাতে আফসোস নেই আমার। কারণ আমার বেঁচে থাকার অবলম্বন একমাত্র আরিশা। সে আমার কাছে আছে। এটাই আমার কাছে মূল বিষয়। আমি তাকে নিয়ে কানাডাতে ভালো থাকতে চাই। তবে দেশ, দেশের মানুষকে খুব মিস করি। মিডিয়াকেও মিস করি। অবশ্য আর ফেরা হবে কি না বলতে পারি না।

এদিকে তিন্নির একটি ঘনিষ্ঠ সূত্র জানিয়েছে, এ অভিনেত্রী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মিডিয়াকে বিদায় জানানোর। বিষয়টি তিনি সরাসরি ঘোষণা না করলেও এ বিষয়ে কথা বলেছেন ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের সঙ্গে।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি সাদের সঙ্গে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হন তিন্নি। এই সংসারে ওয়ারিশা নামের একজন কন্যাসন্তান রয়েছে। তবে সাদের সাথে তার সংসারও টিকেনি। এর আগে অভিনেতা আদনান ফারুক হিল্লোলের সঙ্গেও বনিবনা না হওয়ায় বিচ্ছেদের ঘটনা ঘটে তিন্নির।

Check Also

নতুন ‘সংসার’ শুরু করলেন অপু বিশ্বাস!

বিনোদন ডেস্ক : এক দশকের ক্যারিয়ারে প্রায় ১০০টি সিনেমায় অভিনয় করেছেন ‘ঢালিউড কুইন’ খ্যাত চিত্রনায়িকা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *